সুদমুক্ত ইসলামী ব্যাংক খিদমাহ ক্রেডিট কার্ড ফিচার

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড তাদের গ্রাহকদের জন্য “ইসলামী ব্যাংক খিদমাহ কার্ড” নামে একটি নতুন আইটি ভিত্তিক শরিয়াহ সম্মত পণ্য (Credit Card) চালু করেছে। এটি সতর্কতার সাথে ইসলামী আর্থিক বিশেষজ্ঞদের দ্বারা তৈরি করা হয়েছে যারা নিশ্চিত করে এই ব্যাংকের পণ্যগুলি ইসলামী শরিয়াহর মধ্যে রয়েছে।

ইসলামী ব্যাংক খিদমাহ ক্রেডিট কার্ড | Khidmah credit card

এই Islami Bank khidmah credit card ”উজরাহ” ধারণার উপর কাজ করে যা একটি নির্দিষ্ট ফি কাঠামোর উপর ভিত্তি করে পরিচালিত। যেখানে গ্রাহকের কাছ থেকে শুধুমাত্র নির্দিষ্ট ফি নেওয়া হবে।

ইসলামী ব্যাংক খিদমাহ ক্রেডিট কার্ড গ্রাহকদের শপিংয়ের সম্পূর্ণ বকেয়া অর্থ পরিশোধ করার অথবা নির্ধারিত তারিখে বকেয়া ব্যালেন্সের ন্যূনতম পরিমাণ পরিশোধ করার একটি ভালো বিকল্প হিসেবে মনে করা হয়।

ইসলামী ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড, এই শরীয়াহ সম্মত ইলেকট্রনিক পণ্য বা Credit Card টি নগদ অর্থ বহন করার ঝুঁকি হ্রাস করার সাথে সাথে আমাদের প্রতিদিনের ক্রয়-বিক্রয় প্রকৃয়াকে সহজ করবে।

এই নতুন পণ্যটি সকল শ্রেণীর লোকদের বিবেচনা করে চালু করা হয়েছে যাতে সকল শেণীকে আর্থিক অন্তর্ভুক্তির মাধ্যমে ব্যাংকিং খাতের একটি বড় অংশের উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করা যায়।

এখন চলুন জেনে নেয়া যাক ইসলামী ব্যাংক খিদমাহ ক্রেডিট কার্ড ফিচার সম্পর্কে, এ কার্ডের ধরণ, সুবিধা অসুবিধা, এটি পাওয়ার যোগ্যতা সহ আরো কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সম্পর্কে।

কার্ডের ধরণ এবং টাকার লিমিট

এ কার্ডের মূলত তিনটি ধরণ হয়ে থাকে ‍এবং ধরণ অনুযায়ি এর আলাদা আলাদা টাকার লিমিটও দিয়ে থাকে। নিচে কার্ডের ধরণ এবং টাকার লিমিট দেয়া হলো।

কার্ডের ধরণটাকার লিমিট
সিলভার৫০,০০০/- পর্যন্ত মাত্র
গোল্ড১,০০,০০০/- পর্যন্ত মাত্র
প্লাটিনাম২,০০,০০০/- পর্যন্ত মাত্র
কার্ডের ধরণ এবং টাকার লিমিট

ইসলামী ব্যাংক খিদমাহ ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা

এই ইসলামী ব্যাংক খিদমাহ ক্রেডিট কার্ড এর বেশ কিছু সুবিধা এর গ্রাহকগণ উপভোগ করতে পারবেন। আপনার সুবিধার্থে এই সুবিধা গুলো নিচে বিস্তারিত দেয়া হলো।

  • এটি “উজরাহ ধারণা” এর উপর ভিত্তি করে একটি শরীয়াহ সম্মত কার্ড।
  • বিশ্বব্যাপী ব্যবহারের বিশেষাধিকার আছে।
  • কেনার ক্ষেত্রে কোনো ঝুঁকি প্রকার নেই।
  • গ্যাস, বিদ্যুৎ বিল ও ওয়াসার বিল পরিশোধ করা যাবে।
  • VISA গ্লোবাল অফারের মধ্যে এক্সক্লুসিভ শপিং এবং ট্রাভেল ডিসকাউন্ট পাওয়া যায়।
  • হোটেল এবং হাসপাতাল বুকিং, বাস, ট্রেন এবং বিমানের টিকিটও বুকিং দেয়া যাবে।
  • সুপারস্টোর গুলোতে কেনাকাটায় একচেটিয়া ছাড় থাকবে।
  • চার্জ সর্বনিম্ন।
  • প্রথম সম্পূরক কার্ডটি পাবেন বিনামূল্যে।
  • কার্ড চেক সুবিধা আছে।
  • অগ্রিম বেতন সুবিধা নেয়ার সুবিধা আছে।
আরো জানতে পড়ুন ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা এবং অসুবিধা

ক্রেডিট কার্ডের সার্ভিস এবং চার্জ

কার্ডের ধরণের উপর ভিত্তি করে এর কিছু আলাদা আলাদা সার্ভিস থাকে এবং কিছু সার্ভিস সবার জন্য সমান থাকে। তবে এ সকল সার্ভিসের বিপরীতে চার্জও এবং ভ্যাট প্রযোজ্য হয় যা গ্রাহককে মাসিক বা বাৎসরিক ভিত্তিতে পরিষোধ করতে হয়। নিচে এই সার্ভিস গুলো এবং পাশাপাশি চার্জও তুলে ধরা হলো।

#প্রাথমিক কার্ডের বার্ষিক ফি: বাৎসরিক সিলভার ১০০০/- টাকা, গোল্ড ১৫০০/-টাকা, এবং প্লাটিনাম ২০০০/-টাকা প্রাথমিক কার্ডের জন্য চার্জ করা হবে। তবে কার্ডধারক ন্যূনতম দুই লক্ষ টাকায় পণ্য বা পরিষেবা ক্রয় করলে কোনো বার্ষিক ফি প্রযোজ্য হবে না। IBBL-এর পেশাদার এবং কর্মচারীদের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র প্রথম বছরের জন্য কোন বার্ষিক ফি প্রযোজ্য হবে না। এখানে পেশাদার মানে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, আইনজীবী, সিএ এবং সিএমএ।

#বার্ষিক ফি (সাপ্লিমেন্টারি কার্ড): প্রথম সাপ্লিমেন্টারি কার্ড বিনামূল্যে। দ্বিতীয় সাপ্লিমেন্টারি কার্ড এবং পরবর্তী প্রতিটি কার্ডের জন্য ৫০০/- টাকা করে চার্জ করা হবে।

#মাসিক রক্ষণাবেক্ষণ ফি: সিলভার ৫০০/- টাকা, গোল্ড ১০০০/-টাকা, এবং প্লাটিনাম ১৫০০/-টাকা। কিন্তু কার্ডধারীকে কোনো রক্ষণাবেক্ষণ ফি দিতে হবে না, যদি তার বকেয়া অর্থ পরিশোধের নির্ধারিত তারিখে বা তার আগে ব্যাংকে সম্পূর্ণরূপে পরিষোধ করা হয়।

#মাসিক ওভার লিমিট চার্জ: সিলভার ৫০০/- টাকা, গোল্ড ৫০০/-টাকা, এবং প্লাটিনাম ৫০০/-টাকা। ৫,০০০/- টাকা পর্যন্ত মাসিক ওভার লিমিট চার্জ গ্রহণ করা হতে পারে।

#বিলম্বে পেমেন্ট চার্জ: সিলভার ৫০০/- টাকা, গোল্ড ৫০০/-টাকা, এবং প্লাটিনাম ৫০০/-টাকা। এটি নেয়া হবে যদি ন্যূনতম বকেয়া পরিমাণ অর্থ প্রদানের তারিখের মধ্যে পরিশোধ না করা হয়।

#কার্ড রিপ্লেসমেন্ট ফি: সিলভার ২০০/- টাকা, গোল্ড ৩০০/-টাকা, এবং প্লাটিনাম ৫০০/-টাকা।

#নগদ উত্তোলনের ফি: সিলভার ১৫০/- টাকা, গোল্ড ১৫০/-টাকা, এবং প্লাটিনাম ১৫০/-টাকা। প্রতিটি কার্ডের জন্য একই।

#ডুপ্লিকেট স্টেটমেন্ট ফি: ৬ মাসের মধ্যে ৩০০ টাকা।

#২০ পাতার কার্ড চেক বুক ইস্যু ফি: ১৫০/- টাকা।

#কার্ড চেক লেনদেন ফি: ৫০০/-টাকা প্রতি লেনদেনের জন্য।

#ফেরত চেক ফি: ২০০/- টাকা। অপর্যাপ্ত তহবিল, ভিন্ন স্বাক্ষর, অর্থ প্রদান ইত্যাদি বন্ধ করার জন্য।

#আউটস্টেশন চেক প্রসেসিং ফি: ৫০/- টাকা।

#বিক্রয় ভাউচার পুনরুদ্ধার ফি: ৫০০/- টাকা, সর্বোচ্চ ৩ মাস পর্যন্ত।

#মাসিক হিসাব বিবরণী: ১০০/- টাকা।

সাথে ভ্যাট যুক্ত হবে।

জেনে নিন কোন ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড ভালো

প্রাথমিক কার্ড হোল্ডারের যা থাকতে হবে

  • চাকরিতে থাকা সরকারী কর্মচারীদের মাসিক ন্যূনতম আয়ের স্তর সিলভার কার্ডের জন্য ২০,০০০/- টাকা, গোল্ড কার্ডের জন্য ৫০,০০০/- এবং প্লাটিনাম কার্ডের জন্য ১,০০,০০০/- টাকা।
  • স্বনামধন্য প্রাইভেট কোম্পানির চাকরিরত কর্মচারীদের মাসিক ন্যূনতম আয়ের স্তর সিলভার কার্ডের জন্য ২০,০০০/-, গোল্ড কার্ডের জন্য ৫০,০০০/- টাকা এবং প্লাটিনাম কার্ডের জন্য ১,০০,০০০/-টাকা।
  • IBBL এর একাউন্টধারী, যিনি সন্তোষজনক লেনদেন করেন এবং একাউন্টে পর্যাপ্ত ব্যালেন্স আছে।
  • বিদেশী প্রেরক বা সুবিধাভোগী যারা ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে ঘন ঘন প্রচুর পরিমাণে বিদেশী রেমিট্যান্স পাঠান বা গ্রহণ করেন।
  • যেকোনো বাণিজ্যিক ব্যাংকে সন্তোষজনক ব্যালেন্স সহ গ্রাহকদের অ্যাকাউন্ট রয়েছে।
  • TIN সার্টিফিকেট দ্বারা সন্তোষজনক আয়কর রিটার্ণের প্রমাণ সহ ব্যবসায়ীরা (মাসিক আয়ের স্তর সিলভার কার্ডের জন্য টাকা ৫০,০০০/-, গোল্ড কার্ডের জন্য ১,০০,০০০/- টাকা এবং প্লাটিনাম কার্ডের জন্য ১,৫০,০০০/-)।
  • শিক্ষক, ডাক্তার, প্রকৌশলী এবং অন্যান্য পেশাজীবী।
  • অন্য কোন ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড থাকা গ্রাহকদের, কিন্তু ১টির বেশি নয়।
  • পর্যটন, ব্যবসা, এবং বিদেশে চিকিৎসার উদ্দেশ্যে ভ্রমণকারীরা।
  • বিদেশী খামারের সাথে চুক্তিবদ্ধ বাংলাদেশী নাগরিক।

সাপ্লিমেন্টারি কার্ড হোল্ডারের যা থাকতে হবে

  • একজন কার্ডধারীর পরিবারের সদস্য।
  • বিদেশী প্রেরকের সুবিধাভোগী। অর্থাৎ বিদেশে টাকা পাঠায় বা বিদেশ থেকে টাকা আসে এমন।

ইসলামী ব্যাংক ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতা

কার্ড গুলো দেয়ার জন্য আপনার যেসকল বিষয় দেখা হবে বা আপনার যে যোগ্যতা গুলো থাকতে হবে তা হলো:

  • প্রাথমিক কার্ডের আবেদনকারীর বয়স ২১ বছরের বেশি হতে হবে।
  • সাপ্লিমেন্টারি কার্ড আবেদনকারীর বয়স কমপক্ষে ১৮ বছর হতে হবে।
  • মাসিক আয় সর্বনিম্ন টাকা হতে হবে ২০,০০০/- শুধুমাত্র।
  • যে আবেদনকারীর অন্যান্য ব্যাংকের ১টির বেশি ক্রেডিট কার্ড রয়েছে তিনি IBBL Khidmah কার্ড সুবিধা পাওয়ার যোগ্য নন।
  • ভিসার সাথে বৈধ পাসপোর্টের ফটোকপি বাধ্যতামূলক, যারা পরিদর্শন/চিকিৎসা/ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে বিদেশে যেতে চান তাদের।
  • স্ব-কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে, বৈধ ট্রেড লাইসেন্সের অনুলিপি এবং গত ৬ মাসের ব্যক্তিগত বা কোম্পানীর ব্যাংক স্টেটমেন্ট।
  • শেষ একাডেমিক সার্টিফিকেট।
  • ডিপি নোট, ডিপি নোট ডেলিভারি লেটার এবং ব্যক্তিগত গ্যারান্টি।

চাকরীজিবীদের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

গ্রাহকদের পেশা অনুযায়ি কিছু কাগজপত্র ভিন্ন হয়ে থাকে। তাই এখানে নিচে তুলে ধরা হলো চাকরীজিবীদের জন্য যেসকল কাগজপত্র দরকার হবে তা।

  • দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি।
  • জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি বা পাসপোর্টের একটি কপি অথবা ড্রাইভিং লাইসেন্স এর কপি।
  • বার্থ সার্টিফিকেট সহ কর্মচারীর আইডি কার্ড বা ছবি আছে এমন কোনো আইডি, কমিশনারের শংসাপত্রের কপি (যদি NID/পাসপোর্ট/ড্রাইভিং লাইসেন্স না থাকলে)।
  • সর্বশেষ ট্যাক্স রিটার্ন স্বীকৃতি স্লিপের কপি।
  • গত ৬ মাসের ব্যক্তিগত ব্যাংক স্টেটমেন্ট।
  • সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সিল ও স্বাক্ষর সহ সর্বশেষ মূল বেতনের প্রশংসাপত্র।
  • ভিজিটিং কার্ড (যদি পাওয়া যায়)।
  • ক্লিন সিআইবি রিপোর্ট।

ব্যবসায়িদের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

এখানে নিচে তুলে ধরা হলো ব্যবসায়িদের জন্য যেসকল কাগজপত্র দরকার হবে তা।

  • ২কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি।
  • জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি বা পাসপোর্টের একটি কপি অথবা ড্রাইভিং লাইসেন্স এর কপি।
  • আপ টু ডেট ই-টিআইএন সার্টিফিকেট / সর্বশেষ ট্যাক্স রিটার্ন স্বীকৃতি স্লিপ (ব্যক্তিগত ও কোম্পানি) এর কপি।
  • গত ৬ মাসের ব্যাংক স্টেটমেন্ট।
  • বৈধ ট্রেড লাইসেন্সের কপি (সর্বশেষ/নবায়ন)।
  • বিজনেস কার্ড।
  • ক্লিন সিআইবি রিপোর্ট।
  • বসবাসের প্রমাণ (অর্থাৎ হোল্ডিং ট্যাক্স পেমেন্টের রসিদ বা বিদ্যুৎ/গ্যাস/ওয়াসা/বিটিটিবি টেলিফোন বিলের মতো যেকোনো ইউটিলিটি বিলের পেমেন্টের একটি সত্যায়িত কপি)।
ক্রেডিট কার্ড নেয়ার নিয়ম

তথ্য সূত্র: ইসলামী ব্যাংকের ওয়েব সাইট

ইসলামী ব্যাংক খিদমাহ ক্রেডিট কার্ড নিয়ে প্রশ্ন এবং উত্তর

প্রাথমিক কার্ডের আবেদনকারীর বয়স কতো হতে হবে?

প্রাথমিক কার্ডের আবেদনকারীর বয়স ২১ বছরের বেশি হতে হবে।

বিলম্বে পেমেন্ট চার্জ কতো?

সিলভার ৫০০/- টাকা, গোল্ড ৫০০/-টাকা, এবং প্লাটিনাম ৫০০/-টাকা। এটি নেয়া হবে যদি ন্যূনতম বকেয়া পরিমাণ অর্থ প্রদানের তারিখের মধ্যে পরিশোধ না করা হয়।

সাপ্লিমেন্টারি কার্ড আবেদনকারীর বয়স কতো হতে হবে?

সাপ্লিমেন্টারি কার্ড আবেদনকারীর বয়স কমপক্ষে ১৮ বছর হতে হবে।

এই পোস্টের মতো ক্রেডিট কার্ডের আরো গুরুত্বপূর্ণ সকল তথ্য পেতে ভিজিট করতে পারেন “ক্রেডিট কার্ড”এই লিংকে।

ডেভিড কার্ড ও ক্রেডিট কার্ডের মধ্যে পার্থক্য

ক্রেডিট কার্ড সম্পর্কে আরো কিছু পোস্ট

১. ডাচ বাংলা ব্যাংক ক্রেডিট কার্ড
২. ভিসা কার্ড ও মাস্টার কার্ডের পার্থক্য এবং সাদৃশ্য

Similar Posts

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।