সহজে ইন্ডিয়া থেকে বাংলাদেশে টাকা পাঠানোর নিয়ম

ভারত থেকে কিভাবে বাংলাদেশে টাকা পাঠানো যায় তা খুজছেন? এখানে এনিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

ADVERTISEMENT
ইন্ডিয়া থেকে বাংলাদেশে টাকা পাঠানোর নিয়ম

বাংলাদেশি অনেকেই আছেন যারা ইন্ডিয়াতে কাজ করেন। কাজ করার খাতিরে তাদের মাসে মাসে দেশে পরিবারের কাছে remittance পাঠানোর দরকার পরে। কিন্তু ভারত থেকে বাংলাদেশে টাকা পাঠানোর উপায় না জানার কারণে তারা অনেক সময় অবৈধ পথে দেশে টাকা পাঠান, যা অত্যন্ত ঝুকিপূর্ণ।

বৈধ পথে অনেক অপশন আছে যার মাধ্যমে আপনি ইন্ডিয়া থেকে বাংলাদেশে টাকা পাঠাতে পারবেন। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ব্যাংকিং সিস্টেম বা অন্য অনেক মানি ট্রান্সফার এজেন্সি আছে যার মাধ্যমে আপনি দেশে টাকা ট্রান্সফার করতে পারবেন।

ADVERTISEMENT

যাই হোক, আপনার সুবিধার্থে আজকের এই পোস্টে আমি আলোচনা করবো ইন্ডিয়া থেকে বাংলাদেশে টাকা পাঠানোর নিয়ম কি এবং ভারত থেকে কি বিকাশে বাংলাদেশে টাকা পাঠানো যায় কিনা, এমন সব প্রশ্নের উত্তর। চলুন তাহলে শুরু করা যাক।

Table of Contents

ভারত থেকে বাংলাদেশে টাকা পাঠানোর উপায় গুলো

আমাদের পাশের দেশ ভারত থেকে বাংলাদেশে যদি কেউ টাকা পাঠাতে চান, তবে বিভিন্ন উপায়ে সেটি করতে পারবেন। বর্তমানে ইন্টারন্যাশনাল লেনদেনের জন্য বেশ কিছু আন্ত ব্যাবস্থা চালু হয়েছে, যার মাধ্যমে শুধু ইন্ডিয়া থেকে বাংলাদেশে নয়, ইন্ডিয়া থেকে বিশ্বের অনেক দেশেই টাকা পাঠানো যাবে।

ADVERTISEMENT

ইত্যাদি। আবার আরেকটি উপায় হচ্ছে হুন্ডির মাধ্যমে টাকা পাঠানো, যা সম্পূর্ণ অবৈধ। এই মাধ্যমে টাকা পাঠালে আপনার জেল জরিমানা হতে পারে। আর এ মাধ্যম কোনো সেইফ মাধ্যমও নয়। কেননা এখানে লেনদেনের কোনো রেকর্ড রাখা হয় না। তাই এই মাধ্যমে টাকা না পাঠানোই ভালো।

বিকাশের মাধ্যমে কি ভারত থেকে বাংলাদেশে টাকা পাঠানো যায়?

বিকাশ, রকেট, বা নগদ যাই বলেন না কেন, এগুলো শুধু বাংলাদেশেই চলে। অর্থাৎ এগুলো দেশের বাইরে থেকে চালানো সম্ভব নয়। তবে বিকাশের সাথে ইন্টারন্যাশনালি এমন অনেক প্রতিষ্ঠানের সাথে পার্টনারশীপ আছে যারা বাইরে থেকে দেশে টাকা পাঠাবে এবং আপনি তা রিসিভ করতে পারবেন আপনার বিকাশ একাউন্ট থেকে।

এখন আমাদের পাশের দেশ ভারত থেকেও কি বিকাশ চালানো সম্ভব নয়? উত্তর হলো লিগাল ভাবে নয়। তবে পশ্চিম বঙ্গে সিমান্ত বর্তি এলাকায় অনেকে বাংলাদেশি সিম ইলিগ্যালি ব্যবহার করে এবং তারা বিকাশও চালায়। আবার কলকাতা, চেন্নাই ও ভেলুর থেকেও বিকাশের মাধ্যমে লেনদেন করা যাবে।

ADVERTISEMENT

তবে মফস্বল শহরে বিকাশের সুবিধা পাওয়া যাবে না। অনেকে এসব মাধ্যমে দেশে অনেক সময় টাকা পাঠায় বা দেশ থেকে ভারতে টাকা নেয়। তবে এই পদ্ধতি লিগ্যাল নয়, সম্পূর্ণ অবৈধ।

যেমনটি বলছিলাম যে, বিকাশের সাথে ইন্টারন্যাশনাল অনেক লেনদেন প্রতিষ্ঠানের সাথে পার্টনারশীপ আছে। উপরে উল্লেখিত Wise বা Western Union বা Paytm সহ এমন অনেক মাধ্যম আছে যেখানে আপনারা বিকাশে টাকা পাঠানোর অপশন পেয়ে যাবেন। আর এই টাকা দেশে আপনার রিসিভারের একাউন্টে সরাসরি রিসিভ হবে।

বিদেশ থেকে বিকাশে টাকা পাঠানোর ব্যাপারে আমাদের আলাদা একটি পোস্ট আছে, “বিদেশ থেকে বিকাশে টাকা পাঠানোর নিয়ম” এই পোস্টি পড়তে পারেন।

ADVERTISEMENT

ইন্ডিয়া থেকে বাংলাদেশে টাকা পাঠানোর নিয়ম

উপরে উল্লেখিত মাধ্যমগুলো, যেমন Western Union, Safe pay, Taptap send ইত্যাদি, ব্যবহার করে আপনি ইন্ডিয়ায় বসে বাংলাদেশে আপনার কোনো আত্মীয় বা আপনার কোনো ক্লায়েন্টের কাছে টাকা পাঠানোর জন্য মাধ্যম গুলোর অনলাইন সার্ভিস বা তাদের অফিস ভ্রমণ করে সহযোগিতা নিতে পারেন।

কোনো কোনো মাধ্যমের অনলাইন এবং অফলাইন, উভয় ধরণের সার্ভিস এভেইলএবল থাকে। যেমন ধরুন আপনি Western Union এর অনলাইন সুবিধা নিতে পারবেন তাদের ওয়েবসাইট বা তাদের মোবাইল এপ ব্যবহার করে। অপর দিকে Google pay বা Wise এদের সার্ভিস সচরাচর অনলাইনেই পাওয়া যায়।

ওয়েস্টার্ণ ইউনিয়নের মাধ্যমে ভারত থেকে বাংলাদেশে টাকা পাঠানোর নিয়ম

উপরে যেমনটি বলছিলাম যে, ওয়েস্টার্ণ ইউনিয়ন অনলাইন এবং অফলাইন উভয় ধরণের সার্ভিস দিয়ে থাকে। আপনি যদি গুগলে সার্চ করেন যে ”ওয়েস্টার্ণ ইউনিয়ন অফিস লোকেশন” তবে আপনি আপনার নিকট বর্তি ওয়েস্টার্ণ ইউনিয়নের অফিস লোকেশন পেয়ে যাবেন। সেখানে গিয়ে আপনি আপনার লেনদেন সম্পন্ন করতে পারবেন।

টাকা পাঠানোর জন্য পেরককে প্রাপকের সাধারণ কিছু তথ্য দিতে হবে। লেনদেন সম্পন্ন হলে তারা আপনাকে একটি নাম্বার দিবে, যা সংগ্রহ করতে হবে। এই নাম্বার দিয়ে প্রাপক ওয়েস্টার্ণ ইউনিয়েনের অফিস থেকে টাকা সংগ্রহ করতে পারবে। আবার প্রেরক চাইলে ওয়েস্টার্ণ ইউনিয়ন থেকে প্রাপকের বিকাশে টাকাটি পাঠাতে পারবেন।

ADVERTISEMENT

ঘরে বসে অনলাইনে টাকা পাঠানোর নিয়ম

আপনি যদি চান যে ঘরে বসে অনলাইনে করে ফেলতে, তবে ওয়েস্টার্ণ ইউনিয়নের ওয়েবসাইট বা এপে গিয়ে লগইন করে নিন। তারপর নিচের পদ্ধতি অনুসরণ করুন।

#১ম ধাপ: লগইন করার পর আপনার সামনে কান্ট্রি সিলেক্ট করার অপশন আসবে। সেখানে আপনাকে যে দেশে টাকা পাঠাতে চান সে দেশের নাম সিলেক্ট করতে হবে। সিলেক্ট করার পর আপনার কাঙ্খিত এমাউন্ট যা আপনি পাঠাতে চান তা লিখতে হবে।

তারপর আপনি কোন মাধ্যমে টাকা পাঠাতে চান, ব্যাংক একাউন্টে, এজেন্টের কাছে নাকি বিকাশে, তা সিলেক্ট করুন। এরপর আপনি কি মাধ্যমে টাকাটি পে করছেন তা সিলেক্ট করুন। এখন একটু নিচে আসলে আপনার লেনদেনের ডিটেইলস দেখতে পারবেন এবং তা দেখে নিয়ে আপনাকে নেক্সটে ক্লিক করতে হবে।

ADVERTISEMENT

এরপর একটি নোটিস আসবে, তা পড়ে নিয়ে কন্টিনিউতে ক্লিক করে পরের ধাপে চলে যেতে হবে।

#২য় ধাপ: এধাপে আপনার রিসিভারের কিছু তথ্য দিতে হবে। প্রাপকের নির্ভুল ভাবে ফাস্ট নেম ও লাস্ট নেম এবং মোবাইল নাম্বার দিতে হবে। তারপর ট্রান্জেকশন পারপাস, যাকে টাকা পাঠাচ্ছেন তার সাথে আপনার রিলেশন, তার এড্রেস, ন্যাশনালিটি, ডেট অফ বার্থ, মোবাইল নাম্বার এগুলো দিয়ে শেষে থাকা নেক্সট অপশনে ক্লিক করতে হবে।

#৩য় ধাপ: পরের ধাপে আপনার সেন্ডিং ডিটেইলস দেয়া থাকবে। ডিটেইল ঠিক আছে কিনা চেক করে নিয়ে নিচে থাকা টার্মস এন্ড কন্ডিশনের বক্সে Agree দিয়ে নিচে থাকা নেক্সট অপশনে ক্লিক করতে হবে।

#৪র্থ ধাপ: তার পর আপনি যেখান থেকে পে করছেন সেখানকার কিছু তথ্য দিতে হবে। যদি কার্ড থেকে পে করেন তবে কার্ডের ইনফর্মেশন দিতে হবে। ইনফর্মেশন দিয়ে নিচে থাকা পে নাও অপশনে ক্লিক করে পরবর্তি ধাপে যেতে হবে।

এখন আপনার মোবাইলে একটি ওটিপি নাম্বার আসবে, যে ওটিপি আপনাকে সাবমিট করতে হবে। সাবমিট করা হলে আপনার একাউন্ট থেকে টাকাটি কেটে নেয়া হবে এবং আপনার টাকা ট্রান্সফার কমপ্লিট হয়ে যাবে।

তবে ওয়েস্টার্ণ ইউনিয়ন থেকে বিকাশে পাঠানো পাঠানোর পর তা কিভাবে রিসিভ করবেন এবং ওয়েস্টার্ণ ইউনিয়ন থেকে আরো বিস্তারিত জানতে পড়ুন ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন টাকা পাঠানোর ও গ্রহণ করার নিয়ম

ট্যাপ ট্যাপ সেন্ড থেকে দেশে টাকা পাঠানোর নিয়ম

  • ট্যাপ ট্যাপ সেন্ড অ্যাপটি আপনার ফোনে ইনস্টল করুন।
  • অ্যাপটি খুলে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করুন, বা অ্যাকাউন্ট থাকলে log in করুন।
  • দেশ সিলেক্ট করুন বাংলাদেশ।
  • পাঠানো টাকার পরিমাণ নির্ধারণ করুন এবং লিখুন।
  • যাকে টাকা পাঠাবেন তার বিকাশ বা নগদ নাম্বার সিলেক্ট করুন। চাইলে ব্যাংকও সিলেক্ট করতে পারেন।
  • আপনার রিসিভারের কিছু তথ্য দিন।
  • আপনার ঠিকানার বিস্তারিত দিন।
  • কার্ড বা ব্যাংক ইনফর্মেশন দিন।
  • আপনার সকল তথ্য রিভিউ করে কনফার্ম করুন।
  • নিজের পিন নম্বর দিয়ে লেনদেনটি নিশ্চিত করুন।
  • কিছুক্ষণের মধ্যেই টাকা প্রাপকের অ্যাকাউন্টে চলে যাবে।

ট্যাপ ট্যাপ সেন্ড থেকে আপনি দেশে ফ্রিতে টাকা পাঠাতে পারবেন।

ইন্ডিয়া থেকে বাংলাদেশি ব্যাংকে টাকা পাঠানোর নিয়ম

ইন্টারন্যাশনাল অর্থ লেনদেন আমাদের ইন্টার কানেকটেড ওয়ার্ল্ডে ক্রমশ সাধারণ হয়ে উঠেছে। আপনি যদি ভারত থেকে বাংলাদেশে অর্থ পাঠাতে চান তবে একটি ব্যাংকিং চ্যানেল ব্যবহার করা নিরাপদ এবং নির্ভরযোগ্য বিকল্প হতে পারে। কিভাবে ব্যাংকিং চ্যানেলে টাকা পাঠাবেন চলুন তা দেখে নেয়া যাক।

ধাপ 1: ব্যাংকিং চ্যানেল নির্বাচন করুন

আন্তর্জাতিকভাবে অর্থ লেনদেন করার সময় সঠিক ব্যাংকিং চ্যানেল নির্বাচন করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ব্যাংক এবং মানি ট্রান্সফার এজেন্সি সহ বিভিন্ন অপশন থাকলেও, ভালো রেপুটেশন এবং অনুমোদন আছে এমন ব্যাংক বেছে নেওয়াই ভালো। এ ধরণের অপশনগুলো আপনার লেনদেনের নিরাপত্তা এবং বৈধতা নিশ্চিত করবে।

আপনি লেনদেনের জন্য একটি বিশ্বস্ত প্রতিষ্ঠান ব্যবহার করছেন তা নিশ্চিত করতে আপনি আরবিআই এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইটে আন্তর্জাতিক অর্থ স্থানান্তরের জন্য অনুমোদিত ব্যাংকগুলির তালিকা দেখতে পারেন।

ধাপ 2: আপনার প্রয়োজনিয় ডকুমেন্টস প্রদান করুন

লেনদেন শুরু করার আগে, ব্যাংকগুলি আপনার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র এবং পরিচয় যাচাইকরণ প্রক্রিয়াগুলি সম্পূর্ণ করবে। এখানে আপনার কোনো পরিচয়পত্র, এড্রেস এবং অন্যান্য কিছু ডকুমেন্টস দরকার হতে পারে। যেকোনো প্রকার বিলম্ব এরাতে নিশ্চিত করুন যে আপনার সকল ডকুমেন্টস বিদ্যমান আছে।

ধাপ 3: রিসিভারের তথ্য প্রদান করুন

আপনাকে আপনার রিসিভার সম্পর্কে সঠিক এবং সম্পূর্ণ তথ্য প্রদান করতে হবে। রিসিভারের পুরো নাম, বাংলাদেশে তার ব্যাংকের নাম এবং ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বর ও ঠিকানা অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। এছাড়া অন্যান্য তথ্য দরকার হতে পারে। তথ্য দেয়ার পর তা ঠিক আছে কিনা চেক করুন। কেননা কোনো ভুল থাকলে আপনার লেনদেন হোল্ড হতে পারে।

ধাপ 4: স্থানান্তর পদ্ধতি নির্বাচন করুন

ওয়্যার ট্রান্সফার, ডিমান্ড ড্রাফ্ট এবং অনলাইন ব্যাংকিং সহ আন্তর্জাতিক অর্থ লেনদেনের জন্য ব্যাংকগুলি বিভিন্ন পদ্ধতি অফার করে। প্রতিটি পদ্ধতির আলাদা আলাদা সুবিধা এবং ফি আছে। এই অপশনগুলির মধ্যে পার্থক্য করা এবং প্রয়োজন এবং বাজেটের সাথে মানানসই একটি অপশন বেছে নেওয়াই হল গুরুত্বপূর্ণ।

ধাপ 5: ফি এবং বিনিময় হার গণনা করুন

ব্যাংকগুলি আন্তর্জাতিক অর্থ লেনদেনের জন্য ফি নেয়, যা একটির তুলনায় আরেকটির সাথে বিশাল পার্থক্য হতে পারে। ফি ছাড়াও আপনাকে ব্যাংকের দেওয়া বিনিময় হার সম্পর্কেও সচেতন হতে হবে, যেমন কেউ আপনাকে ডলারের দাম ১০৪ টাকা দিলে কেউ দিবে ১০৬ টাকা। একটি ভালো লেনদেনের অভিঙ্গতা পেতে বিভিন্ন ব্যাংকের দেওয়া ফি এবং বিনিময় হারের তুলনা করুন।

ধাপ 6: স্থানান্তর শুরু করুন

সমস্ত প্রয়োজনিয় ডকুমেন্টস পেয়ে যাওয়ার পর এবং একটি হস্তান্তর পদ্ধতি বেছে নেয়ার পর, ডকুমেন্টস নিয়ে সেই ব্যাংকে চলে যান বা আপনার অনলাইন ব্যাংকিং প্ল্যাটফর্মে প্রবেশ করুন। লেনদেন শুরু করতে ব্যাংকের নির্দেশাবলী অনুসরণ করুন। কিছু ব্যাংক আপনাকে আপনার লেনদেনের অগ্রগতি জানতে তা ট্রাক করার সুযোগ দিবে।

ধাপ 7: রেকর্ড রাখুন

লেনদেনের রেফারেন্স নম্বর, রসিদ এবং ব্যাংকের সাথে যেকোনো চিঠিপত্র সহ আপনার লেনদেনের যেকোনো রেকর্ড রাখা অপরিহার্য। এই ডকুমেন্টস গুলি লেনদেন প্রকৃয়া চলাকালীন যেকোনো সমস্যা সমাধানে প্রয়োজন হতে পারে।

ভারত সহ যেকোনো দেশ থেকে বাংলাদেশে কিছু ব্যাংকে টাকা পাঠানোর নিয়ম নিয়ে লেখা নিচের পোস্ট গুলো ব্যাংকিং চ্যানেলে টাকা পাঠানোর নিয়ম নিয়ে আপনাকে আরো কিছু তথ্য দিতে পারে।

সোনালী ব্যাংকবিদেশ থেকে সোনালী ব্যাংকে টাকা পাঠানোর নিয়ম
ডাচ বাংলাবিদেশ থেকে ডাচ বাংলা ব্যাংকে টাকা পাঠানোর নিয়ম
ইসলামী ব্যাংকবিদেশ থেকে ইসলামী ব্যাংকে টাকা পাঠানোর নিয়ম
অগ্রণী ব্যাংকবিদেশ থেকে অগ্রণী ব্যাংকে টাকা পাঠানোর নিয়ম
বিদেশ থেকে বাংলাদেশি ব্যাংকে টাকা পাঠানোর নিয়ম

ইন্ডিয়া থেকে বাংলাদেশে টাকা পাঠানোর নিয়ম তো দেখলেন। এখন যদি বাংলাদেশ থেকে ভারতে টাকা পাঠাতে চান তবে পড়তে পারেন বাংলাদেশ থেকে ভারতে টাকা পাঠানোর উপায়

কিছু প্রশ্ন এবং উত্তর

ইন্ডিয়া থেকে কি বিকাশে টাকা পাঠানো যায়?

আপনি চাইলে ইন্ডিয়া থেকে কিছু বৈধ মাধ্যম ব্যবহার করে দেশে বিকাশে টাকা পাঠাতে পারবেন। তবে এই পোস্টি যখন লিখা হচ্ছে তখন পর্যন্ত বিদেশে বিকাশ ব্যবহার করা সম্ভব নয়। তাই বিদেশে বিকাশ একাউন্ট ব্যবহার করে দেশে বিকাশে টাকা পাঠানোর কোনো সুযোগ নেই।

ইন্ডিয়া থেকে বাংলাদেশে টাকা পাঠানোর একটি মাধ্যম কিভাবে নির্বাচন করবো?

ব্যাংক এবং মানি ট্রান্সফার এজেন্সি সহ বিভিন্ন অপশন থাকলেও, ভালো রেপুটেশন এবং অনুমোদন আছে এমন অপশন বেছে নেওয়াই ভালো। এছাড়া লেনদেন ফি এবং বিনিময় হার সম্পর্কেও সচেতন হতে হবে। এগুলো মাথায় নিয়ে একটি অপশন বেছে নিতে হবে।

বিদেশ থেকে দেশে টাকা পাঠানো নিয়ে আমাদের অন্য পোস্ট গুলো পড়ুন

রেমিটেন্স নিয়ে আরো জানতে পড়ুন Remittance এই পোস্টি। হোম পেজে যেতে ক্লিক করুন bankline এ।

ADVERTISEMENT

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *