যৌথ ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম ও সুবিধা অসুবিধা

বিভিন্ন সময় বিভিন্ন প্রয়োজনে আমাদের ব্যাংকে যৌথ হিসাব খোলার নিয়ম প্রয়োজন হয় বা দরকার হয়। যেমন স্বামী স্ত্রী, বাবা ছেলে, মা ছেলে, দুই বন্ধু বা দুই জন ব্যাক্তি। এই রকম একাউন্ট গুলোই হল যৌথ ব্যাংক একাউন্ট।

ব্যাংক একাউন্ট সাধারণত বিভিন্ন ভাবে খোলা যায় । আমরা প্রচলিত যে একাউন্ট গুলো খুলি, যেমন সেভিং একাউন্ট, চলতি একাউন্ট, ফিক্স ডিপোজিট, ডিপিএস স্বল্প মেয়াদী আমানত একাউন্ট ইত্যাদি। এগুলোর মালিক চাইলে যৌথ ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম অনুসরণ করে যৌথ একাউন্ট করতে পারবেন।

ব্যাংকে যৌথ হিসাব খোলার নিয়ম সাধারন একাউন্ট খুলার নিয়মের তুলনায় একটু ঝটিল। যৌথ নামে হিসাব খোলার সময় ব্যাংকারকে অন্য সাধারণ হিসাব খোলার চেয়ে একটু বেশি সতর্কতা অবলম্বন করতে হয়। সেই সাথে যারা এই হিসাবধারী হবেন তাদেরও অনেক কিছু বুঝে শুনে সিদ্বান্ত নিতে হয়, যেহেতু এই একাউন্টের মালিক এক জন নয়।

যৌথ একাউন্টের বেশ কিছু সুবিধা ও অসুবিধা আছে যা এই পোস্টে উল্লেখ করা হয়েছে। সেই সাথে যৌথ ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম ও দেয়া হয়েছে এখানে।

যৌথ ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম

যৌথ ব্যাংক একাউন্ট খুলা অন্য সাধারণ একাউন্ট খুলার মতই। কিন্তু ব্যাপারটা হচ্ছে এখানে আপনাকে অনেক গুলো ডকুমেন্ট সাবমিট করতে হবে। সেই সাথে বেশ কিছু বিষয় বুঝে নিয়ে তারপর একাউন্টটি ওপেন করতে হবে।

প্রথমে যৌথ অ্যাকাউন্ট খুলতে কাছাকাছি একটি ব্যাংক শাখা নির্বাচন করুন। এখন আসুন নিচে দেখে নেয়া যাক যৌথ ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম।

একাধিক ব্যাক্তি মিলে খুলতে চাইলে

১. হিসাব খোলার আবেদন পত্র আবেদনকারী/ আবেদনকারীগণকে পূরণ ও স্বাক্ষর করতে হবে। এই আবেদন পত্র ব্যাংক সরবরাহ করবে।

২. টিপি ও কেওয়াইসি ফর্ম পূরণ করতে হবে। এটিও ব্যাংক সরবরাহ করবে।

৩. পরিচয় প্রদান কারী কর্তৃর সত্যায়িত আবেদনকারী/ আবেদনকারীগণের পাসপোর্ট সাইজের ছবি দুই কপি জমা দিতে হবে। সম্প্রতি তোলা ছবি হতে হবে।

৪. ন্যাসনাল আইডি কার্ড/ বৈধ পাসপোর্ট/ ড্রাইভিং লাইসেন্স বা অন্য কোনো পরিচয় পত্রের অনুলিপি। যেখানে ব্যাক্তির ছবি থাকবে, এমন পরিচয় পত্র জমা দিতে হবে।

৫. ব্যাংকের যে কোনো চলতি/ সঞ্চয়ি হিসাব ধারী কর্তৃক পরিচিতি প্রদান করতে হবে। পরিচয় প্রদান কারীর হিসাবটি নিয়মিত হতে হবে এবং কমপক্ষে ৬ মাস ধরে এই একাউন্টে হিসাব পরিচালনা করতে হবে।

৬. নমিনি ও নমিনিগণের বিস্তারিত বিবরণ দিতে হবে। সেই সাথে আবেদন কারী কর্তৃক সত্যায়িত প্রত্যেকের এক কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি লাগবে।

৭. হিসাব ঠিকানার স্বপক্ষে সাম্প্রতিক ইউটিলিটি বিল। যে কোনো ধরণের ইউটিলিটি বিল যেমন: বিদ্যুৎ, গ্যাস বা পানির বিল ইত্যাদি।

৮. নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা ব্যাংকে জমা দিতে হবে।

৯. হালনাগাদ টিআইএন সার্টিফিকেটের অনুলিপি জমা দিতে হবে, যদি থাকে।

প্রতিষ্ঠানটি ট্রাস্ট হলে

যদি ট্রাস্ট কর্তৃক আবেদন করা হয় তবে যা লাগবে।

১. ট্রাস্টের দলিল।

২. আবেদন পত্রে সকল ট্রাস্টির স্বাক্ষর থাকা লাগবে।

যেকোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হলে

১. ম্যানেজিং কমিটির রেজুলেশন লাগবে।

এক্ষেত্রে দুটি রেজুলেশন লাগবে। যে রেজুলেশনের মাধ্যমে কমিটি পাস হয়েছে। অথবা শিক্ষা বোর্ডের কোনো রেজুলেশন যদি থেকে থাকে কমিটি পাশের, সেটি লাগবে। সেই সাথে একাউন্ট খোলার সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে একটি রেজুলেশন লাগবে।

এক্ষেত্রে সিলের প্রয়োজন হবে। প্রতিষ্টানের একটি গোল সিল এবং যাদের স্বাক্ষরে একাউন্ট পরিচালনা হবে তাদের পার্সনাল সিল তার পদবি সহ।

খোলার সময় যে বিষয়টি খেয়াল রাখবেন

একাউন্ট খোলার সময় একটি ইস্ট্রাকশন দিয়ে দিবেন যে, একাউন্টটি কি তিন জনের স্বাক্ষরে নাকি দুই জনের স্বাক্ষরে চলবে। এক্ষেত্রে সুবিধা হল একজন একাউন্ট হোল্ডার মারা গেলে আরেকজন একাউন্টটি পরিচালনা করতে পারবেন।

যৌথ ব্যাংক একাউন্ট খোলার সুবিধা

একটি যৌথ অ্যাকাউন্ট হল এক ধরনের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট যা একাধিক ব্যক্তির মালিকানার অনুমতি দেয়। এই অ্যাকাউন্ট আপনার এবং আপনার পরিবারের একসাথে ব্যাংকে আর্থিক এক্সেস পাওয়ার একটি সহজ উপায়।

এখানে সমস্ত অ্যাকাউন্টধারীদের লেনদেন দেখার অনুমতি দেওয়া হয়। যার কারণে স্কুল, কলেজ বা মসজিদ মন্দিরের মত প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক একাউন্ট খুলার ক্ষেত্রে সুবিধা হয়। নিচে আরো কিছু সুবিধা দেখানো হলো:

  • তহবিলের সমান অ্যাক্সেস।
  • লেনদেন পরিচালনা করা সহজ।
  • দৈনন্দিন খরচ পরিচালনা করতে কার্যকরভাবে সাহায্য করে।
  • অনেক ব্যাংক যৌথ অ্যাকাউন্টে অতিরিক্ত সুবিধা অফার করে, যেমন প্রতিটি অ্যাকাউন্টধারীকে ডেবিট কার্ড এবং চেক বই প্রদান করে।
  • আপনি একই সাথে আপনার আর্থিক লক্ষ্য অর্জন করতে পারেন।
  • দুটি পৃথক অ্যাকাউন্টে ন্যূনতম গড় মাসিক ব্যালেন্স বজায় রাখার কোনো প্রয়োজন নেই।
  • আপনি যদি কোনো কারণে দীর্ঘ সময়ের জন্য দূরে থাকেন তবে অন্য অ্যাকাউন্ট হোল্ডার অ্যাকাউন্টটির যত্ন নিতে পারেন।

যৌথ ব্যাংক একাউন্ট খোলার অসুবিধা

  • যদি কোনো এক অ্যাকাউন্টধারী সমস্ত অর্থ ব্যবহার করে ফেলে, তবে অন্যদের তা পুনরুদ্ধার করার কোন সুযোগ নেই।
  • একজন একাউন্ট ধারকের আর্থিক অবস্থা যৌথ অ্যাকাউন্টে থাকা অন্যান্য ধারকদের উপর প্রভাব ফেলে।
  • বিভ্রান্তি এবং মতবিরোধের সম্ভাবনা থাকে।
  • যদি যৌথ অ্যাকাউন্টধারীর অসদাচরণের কারণে যৌথ অ্যাকাউন্ট আইন দ্বারা বাজেয়াপ্ত হয়ে যায়, তাহলে যৌথ অ্যাকাউন্টের অন্যান্য ধারকগণ তাদের নিজস্ব অর্থ অ্যাক্সেস পেতে সীমাবদ্ধ হতে পারে।
  • যদি যৌথ অ্যাকাউন্টধারীদের কারো ক্রেডিট রেটিং খারাপ থাকে, অন্যরা এর ফলে ক্ষতির সম্মুক্ষিন হতে পারে।

শেষ কথা

মনে রাখবেন যে আপনি যদি আপনার স্বাধীনতা চান এবং অন্যদের সাথে আপনার আর্থিক যে বিবরণ তা ভাগ করতে না চান তবে আপনার যৌথ অ্যাকাউন্ট খোলা উচিত নয়। আর যদি প্রয়োজন হয় ব্যাবসায়িক বা প্রাতিষ্ঠানিক কারণে তবে আপনি যৌথ একাউন্ট খুলতে পারেন।

একটি যৌথ অ্যাকাউন্ট আইনি লড়াইয়ের উচ্চ পরিমাণে ঝুঁকিতে থাকে যা আপনাকে আপনার নিজের তহবিল অ্যাক্সেসে সীমাবদ্ধ করতে পারে এমন পরিস্থিতিতে যখন একজন অ্যাকাউন্টধারীর মৃত্যু হয় বা বিবাহবিচ্ছেদ হয়।

প্রশ্ন ও উত্তর

প্রয়োজনে হিসাব পরিচালনাকারীর যেকোনো একজনের পরিবর্তন কিভাবে করা যায়?

যৌথ ব্যাংক একাউন্টের ক্ষেত্রে হিসাব পরিচালনাকারীর যেকোনো একজনের পরিবর্তন কিভাবে করা যায়?

রেজুলেশন অনুযায়ি কিছু ব্যাক্তির নাম এ্যাকাউন্ট পরিচালনার জন্য থাকবে। তাদের মধ্যে থেকে যেকোনো প্রয়োজনে নাম পরিবর্তন করতে চাইলে তা প্রতিষ্ঠানের সাধারণ সভায় এজেন্ডা ভূক্ত করে অনুমোদন করতে হবে । সকল সদস্যদের সম্মতির সিদ্ধান্ত রেজুলেশনে লিখে সবার স্বাক্ষর নিতে হবে। এরপর রেজুলেশনের কপি সংযুক্ত করে ব্যাংক বরাবর আবেদন করতে হবে ।

অন্য পোস্ট গুলো পড়ুন

Similar Posts

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।