ইসলামী ব্যাংক লোন সংক্রান্ত যাবতিয় তথ্য

ইসলামী ব্যাংক লোন পদ্ধতি সম্পর্কে অনেক মানুষ খুব ভালো ধারণা রাখেনা। বিশেষ করে এই ঋণ নেওয়ার পদ্ধতি অন্যান্য ব্যাংক থেকে একটু ভিন্ন হওয়ায় ইসলামী ব্যাংক লোন নেওয়ার পদ্ধতি কিছুটা কঠিন। সেই সাথে ইসলামী ব্যাংকের সুদের ইস্যুতে ভিন্ন ভিন্ন মতের কারণে ঋণ নেওয়া আরও কঠিন।

ইসলামী ব্যাংক লোন নেওয়ার পদ্ধতি | islami-bank-loan-system-bd

ইসলামী ব্যাংক ঋণ বা Islami bank loan নিতে গিয়ে অনেকেই অভিযোগ করছেন যে, ব্যাংক থেকে লোন নিতে গেছেন কিন্তু তারা ঋণ দেননি বা ইসলামী ব্যাংক সুদ খায়। IBBL এর ব্যাংকিং সিস্টেম নিয়ে এমন অনেক অভিযোগ মানুষের মুখে মুখে শোনা যায়। আমি আজ ইসলামী ব্যাংক লোন সম্পর্কিত সমস্ত বিষয় নিয়ে আলোচনা করব।

ইসলামী ব্যাংক লোন নেওয়ার পদ্ধতি কি, কোন কোন ক্ষেত্রে আপনি এই লোনটি পাবেন এবং লোন পাওয়ার ক্ষেত্রে আপনাকে কি কি শর্ত মানতে হবে এবং কেন আপনি লোন পাবেন না, সবকিছুই আমি আজকের এই পোস্টে বিস্তারিত আলোচনা করব। সেই সাথে আপনাদের সম্ভাব্য কিছু প্রশ্নের উত্তর দেয়ার চেষ্টা করবো একদম শেষে।

Table of Contents

ইসলামী ব্যাংক লোন

বাংলাদেশের ইসলামি ব্যাংক গুলো কর্তৃক প্রদত্ত ঋণ সেবাকে এই ব্যাংক গুলো ঋণ বলতে সম্মত নয়। তারা এটাকে বিনিয়োগ বলে থাকে। এই ব্যাংক লোন বা ঋণ প্রদানের ক্ষেত্রে তাদের নিজেদের সাধ্যমতো চেস্টা করছে সুদ মুক্ত থাকার। কিন্তু বর্তমান প্রেক্ষাপটে সেটি সম্ভব হচ্ছে না ।

ইসলামী ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়ার ক্ষেত্রে আপনাকে কত লভ্যাংশ দিতে হবে এবং সুদের ফি বা সুদের পরিমাণ কত তা এখানে নিচে দেওয়া হয়েছে।

বিনিয়োগ স্কিম সমূহ

  • হাউস হোল্ড ইনভেস্টমেন্ট স্কিম
  • ডাক্তারদের জন্য বিনিয়োগ স্কিম (ISD)
  • ট্রান্সপোর্ট ইনভেস্টমেন্ট স্কিম (TIS)
  • কার ইনভেস্টমেন্ট স্কিম (CIS)
  • ছোট ব্যবসা বিনিয়োগ স্কিম (SBIS)
  • মাইক্রো ইন্ডাস্ট্রিজ ইনভেস্টমেন্ট স্কিম (MIIS)
  • কৃষি বাস্তবায়ন বিনিয়োগ স্কিম (AIIS)
  • রিয়েল এস্টেট ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রাম (REIP)
  • রিয়েল এস্টেট বিনিয়োগ (বাণিজ্যিক ও কার্যকরী মূলধন)
  • IBBL এর কৃষি বিনিয়োগ
  • এনআরবি (অনাবাসী বাংলাদেশি) উদ্যোক্তা বিনিয়োগ স্কিম (NIS)
  • মহিলা উদ্যোক্তা বিনিয়োগ স্কিম (WEIS)

হাউস হোল্ড ইনভেস্টমেন্ট স্কিম


ইসলামী ব্যাংক হোম লোন এর ক্ষেত্রে মূলত ৬ ভাবে ঋণ বা বিনিয়োগ এই ব্যাংক প্রদান করে থাকে । সেখানে যেটা রয়েছে সেটা হচ্ছে নতুন বাড়ি করা, রয়েছে পুরাতন বাড়ি ক্রয় ও নতুন ফ্ল্যাট ক্রয় করতে আপনি ইসলামী ব্যাংক থেকে লোন বা ইনভেস্ট নিতে পারবেন ।

সেই সাথে আপনি নতুন বাড়ি নির্মাণের জন্য ইনভেস্ট নিতে পারবেন । ফ্ল্যাট নির্মাণের জন্য ইনভেস্ট নিতে পারবেন এবং বাড়ি সংস্কার ও বর্ধিতকরণ এর জন্যও ইনভেস্ট নিতে পারবেন ।

এই ব্যাংক থেকে যদি আপনি ঋণ নেন এবং আপনি যদি শহরে থাকেন তাহলে আপনি বাড়ি তৈরীর জন্য সর্বোচ্চ ৩০ লক্ষ টাকা ব্যাংক থেকে পেতে পারেন। যদি কোনো পৌরসভায় থাকেন তাহলে সর্বোচ্চ ২০ লক্ষ টাকা এবং গ্রামের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ইনভিস্ট হিসেবে আপনি পেতে পারবেন।

ডাক্তারদের জন্য বিনিয়োগ স্কিম

ইসলামী ব্যাংকের এই বিনিয়োগ স্কিম বেকার যোগ্য ডাক্তারদের ( ডাক্তার (MBBS), ডেন্টিস্ট (BDS), হোমিওপ্যাথ, ইউনানী, আয়ুর্বেড ডাক্তার ) আত্মকর্মসংস্থানে যেতে এবং সারাদেশে আধুনিক চিকিৎসা সুবিধা সম্প্রসারণের জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সর্বাধুনিক চিকিৎসা সরঞ্জাম সরবরাহ করতে সাহায্য করবে।

সকল মেট্রোপলিটন সিটির জন্য: ১৫ লক্ষ টাকা, জেলার জন্য: ১০ লক্ষ টাকা, থানা/পৌরসভার জন্য: ৭ লক্ষ টাকা, ইনভেস্ট হিসাবে পাওয়া যেতে পারে।

ট্রান্সপোর্ট ইনভেস্টমেন্ট স্কিম

এই বিনিয়োগ স্কিমের উদ্দেশ্য বিদ্যমান পরিবহন সমস্যা কমাতে এবং দেশের দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়ন বিশেষ করে ব্যবসা-বাণিজ্য ও শিল্পের প্রসার নিশ্চিত করা। বিনিয়োগের সময়কাল ধরা হয়েছে 3 থেকে 5 বছর।

ব্যক্তি, ব্যবসায়ী, পরিবহন ব্যবসায় প্রমাণিত অভিজ্ঞতা রয়েছে, ব্যবসায়িক সংস্থা ও শিল্পের অফিসিয়াল/ বাণিজ্যিক ব্যবহার, প্রতিষ্ঠিত ক্লিনিক ও হাসপাতাল ইত্যাদি ব্যাক্তি বা গ্রুপ এই ইনভেস্টমেন্টের জন্য যোগ্য হবেন।

কার ইনভেস্টমেন্ট স্কিম

কর্মকর্তাদের একটি অংশ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং ব্যবসায়িক নির্বাহী এবং প্রতিষ্ঠিত পেশাদারদের তাদের দায়িত্ব ও দায়িত্ব সময়মতো এবং দক্ষতার সাথে পালনের জন্য সহায়তা করা। স্থায়ী কর্মকর্তা, শিক্ষক, ব্যবসায়ী, বাড়ির মালিক, পেশাদার, IBBL-এর বিদ্যমান ক্লায়েন্ট, মজুরি উপার্জনকারী ইত্যাদি ব্যাক্তিরা এই ইনভেস্ট পেতে পারেন।

বিনিয়োগের সময়কাল ধরা হয়েছে রিকন্ডিশন্ড গাড়ির জন্য সর্বোচ্চ 4-বছর এবং একেবারে নতুন গাড়ির জন্য 5-বছর। রিকন্ডিশনের জন্য ২০ লক্ষ এবং ব্র্যান্ড নিউ গাড়ির ৩০ লক্ষ টাকা ইনভেস্ট হিসাবে পাওয়া যেতে পারে।

ছোট ব্যবসা বিনিয়োগ স্কিম

গ্রাম ও শহরের শিক্ষিত বেকার যুবকদের আত্মকর্মসংস্থানের জন্য সহায়তা করা এই বিনিয়োগেন লক্ষ। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তাদের (বৈধ ট্রেড লাইসেন্স সহ বেকার যুবক/ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী/ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প/সেবা খাত) বিনিয়োগের ব্যবস্থা করার জন্য এই বিনিয়োগ করা হবে।

এই বিনিয়োগের সময়কাল হবে সর্বোচ্চ ১ বছর এবং এইচপিএসএম-এ সর্বোচ্চ ২ বছর। বিনিয়োগের পরিমাণ হবে সমস্ত মেট্রোপলিটন সিটির জন্য টাকা ৫ লক্ষ, জেলা ও পৌরসভার জন্য ৩ লক্ষ টাকা, অন্যান্য ২ লক্ষ টাকা।

মাইক্রো ইন্ডাস্ট্রিজ ইনভেস্টমেন্ট স্কিম

শিল্পের বৃহত্তর ভিত্তি তৈরির পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন এলাকায় ক্ষুদ্র শিল্প স্থাপনকে উৎসাহিত করা এই ইনভেস্টমেন্টের লক্ষ। ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপ্লোমা / ডিগ্রিধারী / প্রযুক্তিগত ব্যক্তি এই ইনভেস্ট পেতে পারে।

এর সময়কাল হবে সর্বোচ্চ ১ বছর এবং HPSM-এর জন্য সর্বাধিক ৩ বছর (মায়েদের গর্ভকালীন সময় ব্যতীত)। সমস্ত মেট্রোপলিটন শহরের জন্য ১৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত, জেলা ও পৌরসভার জন্য ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত
অন্যান্য ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ইনভেস্ট পেতে পারেন।

কৃষি বাস্তবায়ন বিনিয়োগ স্কিম

গ্রামীণ বেকার যুবকদের স্ব-কর্মসংস্থানের জন্য সহজ শর্তে পাওয়ার টিলার, পাওয়ার পাম্প, অগভীর নলকূপ, থ্রেসার মেশিন ইত্যাদি সরবরাহ করা, কৃষকদের কৃষি খাতে উৎপাদন বাড়াতে সাহায্য করা এই বিনিয়োগের লক্ষ।

শিক্ষিত/অশিক্ষিত কৃষক এবং ব্যক্তি/যুবক এই বিনিয়োগের আওতায় থাকবে। বিনিয়োগের সময়কাল হবে সর্বোচ্চ ১ বছর এবং HPSM-এর জন্য সর্বাধিক ২ বছর। বিনিয়োগের পরিমাণ হবে সর্বোচ্চ ৩ লক্ষ টাকা।

রিয়েল এস্টেট ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রাম

শহরাঞ্চলে আবাসন সমস্যা কমানো, স্থায়ী আয় গোষ্ঠীর আরামদায়ক বাসস্থানের ব্যবস্থা করা হল এই ইনভিস্টের লক্ষ। জমির মালিক, চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী, পেশাজীবী, প্রবাসী ইত্যাদি ব্যাক্তিরা সর্বোচ্চ 15 বছরের জন্য এই ইনভেস্ট পেতে পারেন।

নির্মাণের জন্য 60% পর্যন্ত কিন্তু ১ কোটি টাকার বেশি নয়, ফ্ল্যাট/অ্যাপার্টমেন্ট ক্রয়ের জন্য 50% পর্যন্ত কিন্তু ৭৫ লক্ষ টাকার বেশি নয় ও রেডিমেড বাড়ি কেনার জন্য 50% পর্যন্ত কিন্তু ১ কোটি টাকার বেশি নয়।

রিয়েল এস্টেট বিনিয়োগ

স্বনামধন্য ডেভেলপার/ব্যবসায়ী ব্যাংকের কাছে গ্রহণযোগ্য। অ্যাপার্টমেন্ট / বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণ, বাণিজ্যিক স্থান / ভবন ক্রয়, লিফট, জেনারেটর, সাব স্টেশন ইত্যাদি সংস্কার ও স্থাপনের জন্য এই ইনভেস্ট করা হবে।

ডেভেলপারদের জন্য সর্বোচ্চ ৪ বছর, বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণের জন্য সর্বোচ্চ ৮ থেকে ১০ বছর (উদ্দেশ্য অনুসারে)। ডেভেলপারদের জন্য নির্মাণ খরচের 30%, ডেভেলপার ব্যতীত পৃথক ব্যক্তি(দের) দ্বারা বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণের জন্য নির্মাণ ব্যয়ের 50% তবে ১ কোটি ৫০ লক্ষ টাকার বেশি হবে না, বাণিজ্যিক স্থান / ভবন ক্রয়ের জন্য ব্যয় মূল্যের 50%।

IBBL এর কৃষি বিনিয়োগ

শেয়ার চাষি, ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষক এবং সমাজের অনুন্নত জাতিতে বিনিয়োগ সুবিধা প্রসারিত করা, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন, সর্বাধিক জনপ্রিয় এবং উচ্চ ফলনশীল জাত উৎপাদনে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করা, কৃষির বহুমুখী খাত ও উপখাতে বিনিয়োগ সুবিধা প্রসারিত করা, কৃষিতে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে কৃষকদের সহায়তা করা, হল এর উদ্দেশ্য।

সংশ্লিষ্ট এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা, শেয়ার ক্রপার, ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষক, সরাসরি কৃষি/আয় সৃষ্টিকারী কর্মকান্ডে নিয়োজিত ব্যক্তি যিনি খেলাপি গ্রাহক নন এবং সংশ্লিষ্ট সেক্টর সম্পর্কে অভিজ্ঞতা আছে তারা এই ইনভেস্ট পেতে পারে ৬ মাস থেকে ৫ বছরের জন্য। বিনিয়োগের পরিমাণ ৫ লাখ থেকে ১০ লাখ।

এনআরবি (অনাবাসী বাংলাদেশি) উদ্যোক্তা বিনিয়োগ স্কিম

এই বিনিয়োগের উদ্দেশ্য:

i. বাংলাদেশীদের (NRBs) বিনিয়োগ সুবিধা প্রসারিত করা এবং IBBL এর মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা প্রেরণ করা।
ii. এসএমই বিনিয়োগ প্রচার করা।
iii. ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে বৈদেশিক রেমিট্যান্স প্রবাহকে উত্সাহিত করা এবং অর্থ পাচার রোধ করা।
iv এনআরবিদের জন্য তাদের এবং তাদের সন্তানদের ফিরে আসার জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করা।
v. দারিদ্র্য দূরীকরণ এবং আদিবাসীদের উন্নয়নে উৎসাহিত করা/কর্মসংস্থানের সুযোগ প্রদান করা
vi. তরুণদের কাছে।

অনাবাসিক বাংলাদেশী/বাংলাদেশী নাগরিক দীর্ঘদিন ধরে বিদেশে বসবাস করছেন, IBBL চ্যানেলের মাধ্যমে বিদেশী মুদ্রা প্রেরণ করেছেন এবং এখন বাংলাদেশে আছেন/ NRB-এর পরিবারের সদস্যরা অর্থাৎ পত্নী, পুত্র এবং/অথবা কন্যা যারা রেমিটেন্সের সাথে IBBL-এর সাথে A/C বজায় রাখছেন তারা এই বিনিয়োগ পাবেনI

বিনিয়োগের সময়কাল, মেয়াদী বিনিয়োগ সর্বোচ্চ ১০ বছর, ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল এবং ট্রেড ফাইন্যান্সিং সর্বোচ্চ ১ বছর।বিনিয়োগের পরিসীমা ৫ লক্ষ টাকা থেকে ১ কোটি টাকা পর্যন্ত হবে।

মহিলা উদ্যোক্তা বিনিয়োগ স্কিম

বিনিয়োগের উদ্দেশ্য:

i. মহিলাদের জন্য বিনিয়োগ সুবিধা প্রসারিত করা।
ii. সম্ভাব্য বেকার নারীদের সম্পৃক্ত করতে সহায়তা করা,
উৎপাদন প্রক্রিয়ায়।
iii. বৈচিত্র্যকরণের মাধ্যমে নারীর আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন
পোর্টফোলিও বিনিয়োগ.

মহিলা উদ্যোক্তা / দক্ষ এবং আধা-দক্ষ মহিলা ব্যক্তিদের সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে বাস্তব অভিজ্ঞতা আছে / শিক্ষিত / প্রযুক্তিগত বেকার মহিলা উদ্যোগী / নতুন মহিলা উদ্যোক্তা / যে কোনও চেম্বার / বাণিজ্য সংস্থা / মহিলা ফোরামের সদস্য এই বিনিয়োগ পাবেন৷

বিনিয়োগের সময়কাল, HPSM মোড: সর্বোচ্চ ৫ বছর, বাই মোড: সর্বোচ্চ ১ বছর, মুশারাকা/মুদারাবা মোড: ৬ মাসের উপর নির্ভর করে। বিনিয়োগের পরিমাণ, একজন একক উদ্যোক্তার জন্য ব্যাংকের বিনিয়োগ ৩০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত।

আরো জানতে ভিজিট করুন।

ইন্টারেস্ট রেট

এগুলো ৭.৫০ শতাংশ থেকে প্রায় ১৬ শতাংশ পর্যন্ত হতে পারে।

ইসলামী ব্যাংক লোন পাওয়ার শর্ত

সরকারি বা বেসরকারি কর্মচারীদের জন্য এক বছরের চাকরির অভিজ্ঞতা প্রয়োজন হবে। এর মানে হল যে আপনার যদি এক বছরের কাজের অভিজ্ঞতা থেকে থাকে তবে আপনি ঋণের জন্য আবেদন করতে পারেন। বাড়িওয়ালাদের ক্ষেত্রে, তাদের অবশ্যই ভাড়া আয়ের একটি প্রমাণ দেখাতে হবে। সরকারী বা বেসরকারী কর্মচারী যারা একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে অর্থ প্রদান করে তাদের গত ছয় মাসের ব্যাংক স্টেটমেন্ট প্রয়োজন হবে। তবে যারা বেতন নগদে গ্রহণ করে তাদের আলাদাভাবে যাচাই করা হবে।

ডাক্তার, প্রকৌশলী, শিক্ষক, আর্কিটেক্টদের একটি কোম্পানিতে ন্যূনতম এক বছর কাজ করার অভিঙ্গতা থাকতে হবে। মানে আপনি যদি অন্য কোম্পানিতে আরও ছয় মাস কাজ করেন তবে এটি হবে না। আপনাকে একটানা ন্যূনতম এক বছর যেকোনো প্রতিষ্ঠানে কাজ করতে হবে।

ব্যবসায়ীদের জন্য ন্যূনতম ব্যবসার বয়স হতে হবে এক বছর। আপনি যদি এটি করে থাকেন তবে আপনি ইসলামী ব্যাংক ঋণের জন্য আবেদন করতে পারেন। আপনি যদি একজন ব্যবসায়ী হন, তাহলে ঋণ পেতে আপনার গত ছয় মাসের ব্যাংকের একটি স্টেটমেন্ট লাগবে। এছাড়াও, ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে যে নথিগুলি নেওয়া হবে তা হল ট্রেড লাইসেন্স এবং টিআইএন শংসাপত্র।

ঋণ পেতে যা যা লাগবে

  • ইসলামী ব্যাংক হোম লোনের জন্য অবশ্যই আপনার নিজস্ব মালিকানার অথবা আপনার পিতার নামে যে কোন একটি জমি থাকলেই হবে, যে জমির মূল দলিল দেখাতে হবে।
  • ডিসিআর খাজনা রশিদ ও নামজারি খতিয়ান লাগবে।
  • সিএস, এসএ, আরএস ও বিএস খতিয়ানের জাবেদার কপি।
  • জেলা/ সাব-রেজিস্ট্রি অফিস কর্তৃক ইস্যুকৃত ১২ বছরের নির্দয় সনদ (এনইসি) লাগবে।
  • সরকারি প্লটের জন্য নির্দিষ্ট প্লটের বরাদ্দ পত্র ও দখল হস্তান্তর পত্র লাগবে।
  • দাতা প্রতিষ্ঠান হতে অনুমতি পত্র লাগবে।

ইসলামী ব্যাংক লোন নেওয়ার পদ্ধতি

লোনের জন্য ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের নিকটস্থ শাখায় আপনাকে ভিজিট করতে হবে। সেখানে গিয়ে আপনি আপনার লোন নেয়ার ব্যাপারে ম্যানেজারের সাথে কথা বলতে পারেন। সব ঠিক থাকলে ম্যানেজার আপনাকে আবেদন করতে বলবে লোনের জন্য।

আপনার যদি কোনো ব্যাপারে সন্দেহ থাকে বা বুঝতে সমস্যা থাকে তবে তা নিয়ে ম্যানেজারের সাথে কথা বলতে পারেন।

ইসলামী ব্যাংক ঋণ সংক্রান্ত প্রশ্ন উত্তর

ইসলামী ব্যাংক ঋণ কি সুদ মুক্ত?

বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুদ বহন করে এবং বাংলাদেশ ব্যাংক সুদ নেয়। তাই বাংলাদেশের অন্য কোনো ব্যাংক 100% সুদমুক্ত নয়। আজ বিশ্বের কোথাও এমন কোনো ব্যাংক নেই যা 100% সুদমুক্ত। কিন্তু ইসলামী ব্যাংক চেষ্টা করে এর থেকে যতটুকু সম্ভব দূরে থাকতে।

ইসলামী ব্যাংকের অন্যান্য পোস্ট গুলো পড়ুন

১. ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস সংক্রান্ত যাবতিয় তথ্যাদি
২. বিদেশ থেকে ইসলামী ব্যাংকে টাকা পাঠানোর নিয়ম
৩. ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট চেক করার নিয়ম
৪. ইসলামী ব্যাংক অনলাইন রেজিস্ট্রেশন করার নিয়ম
islam-bank-help-line-number
ইসলামী ব্যাংক কাস্টমার কেয়ার নাম্বার

Similar Posts

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।