বৈধ উপায়ে রেমিট্যান্স পাঠানোর বীপরিতে প্রণােদনা প্রক্রিয়া সহজ করা হয়েছে

বৈধ উপায়ে রেমিট্যান্স প্রেরণের বিপরীতে যে প্রণােদনা বা নগদ সহায়তা সরকারী ভাবে ঘোষনা করা হয়েছে, সেই নগদ অনেক ক্ষেত্রে দেখাযেত যে প্রবাশিরা পাচ্ছে না। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংক নতুন একটি সার্কুলার জারি করেছে।

সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংক নতুন একটি সার্কুলার জারি করেছে, যেখানে তারা বুঝিয়েছে তারা এখন প্রবাশিদের পাশে আছে এই প্রনোদনা পাইয়ে দেয়ার ব্যাপারে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পূর্বের সার্কুলার অনুযায়ি “৫,০০,০০০(পাঁচ লক্ষ) টাকার অধিক Remittance এর ক্ষেত্রে প্রণােদনা,নগদ সহায়তা প্রদানে রেমিটারের কাগজপত্রাদি বিদেশস্থ এক্সচেঞ্জ হাউজ হতে প্রেরণের বাধ্যবাধকতা রয়েছে”। কিন্ত বর্তমান সার্কুলার অনুযায়ি এই এমাউন্ট যদি ৫০০,০০০ টাকা কম হয় তবে রেমিটারকে ডকুমেন্টস প্রদর্শন করতে হবে না।

পূর্বে দেখা যেত যেকোনো এমাউন্টের ক্ষেত্রে রেমিটারকে তার বৈধতার ডকুমেন্টস সাবমিট করতে হতো। সাবমিট করতে পারলেই দেখা যেত তারা এই প্রনোদনা পেত, নাহয় তা পেতো না। তখন অনেকে ডকুমেন্টস তৈরি করার ঝামেলার কারণে আর তা সাবমিট করতো না আর প্রনোদনাও পেত না।

এখন ৫০০,০০০ টাকার নিচে যেহেতু ডকুমেন্টস সাবমিট করতে হয় না তাই রেমিটার এখন এই এমাউন্টের মধ্যে টাকা পাঠালেই পাবে সরকারীভাবে ঘোষিত প্রনোদনা, অর্থাৎ মোট টাকার শতকরা ২.৫০%। এই টাকা বৈধ উপায়ে দেশে আসলে অটোমেটিক রেমিটারের পাঠানো টাকার সাথে যুক্ত হয়ে যাবে।

সূত্র: বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইট

বিদেশ থেকে বাংলাদেশে বৈধ ভাবে টাকা পাঠানোর বিভিন্ন উপায় নিয়ে আমাদের সাইটে (bankline.info) বেশ কিছু পোস্ট আছে, যা আপনার জন্য প্রয়োজনিয় হতে পারে। তাই আমাদের সাইট ভিজিট করে এ সম্পর্কে আরো জানুন।

Similar Posts

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।